Friday, February 3, 2023
Homeলাইফস্টাইল১০টি ব্যবসা যেগুলো বিনা পুঁজিতে সম্ভব

১০টি ব্যবসা যেগুলো বিনা পুঁজিতে সম্ভব

বর্তমানে চাকরির বাজার দিনকে দিন খারাপ হয়ে যাচ্ছে। শিক্ষিত ছেলে মেয়েরা চাকরির অভাবে বেকারত্বের জ্বালায় ভুগছেন, এদিকে তারা যে ব্যবসা করবেন তাদের হাতে পুঁজি নেই তাই আজকে আমি এমন ১০টি ব্যবসার কথা বলব যেগুলো বিনা পুঁজিতে সম্ভব চলুন জেনে নেওয়া যাক।

১।ওয়েব ডিজাইন-

আপনার যদি ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে ভালোমতো নলেজ থাকে তাহলে ফ্রীল্যান্স সাইটগুলোতে নিজের পোর্টফোলিও দিয়ে রাখুন একটি নমুনা ওয়েবসাইটের লিঙ্ক দিয়ে রাখুন। এরপর বাজার দর অনুযায়ী নিজের একটি পারিশ্রমিক জানিয়ে ঘরে বসেই ওয়েব ডিজাইন করে ইনকাম করুন।

২। মার্কেটিং-

আমাজনের মতো সাইটগুলি বিভিন্ন পণ্যের রিভিউ লেখার জন্য মার্কেটিং করানোর জন্য লোক নিয়োগ করে থাকেন। ওয়ার্ড অফ মাউথ এর মত অনেক কোম্পানি আছে যারা নিজেদের প্রোডাক্ট অনলাইনে প্রমোট করার জন্য পয়সা দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার যদি প্রচুর ফলোয়ার সমৃদ্ধ একটি সাইট থেকে থাকে তাহলে আপনি এই কাজটি করতে পারবেন।

৩। ই-বুক রাইটার-

বর্তমানে ই-বুকের চাহিদা এমন ভাবে বেড়েছে যে পাবলিকেশন্স গুলো ই-বুক রাইটার খুঁজছেন। লেখালেখির হাত, ভাষার প্রতি দক্ষতা এবং টাইপিং স্পিড এই বিষয়গুলি
যদি আপনার থেকে থাকে, তাহলে আপনি অনায়াসেই একজন ই বুক রাইটার হয়ে যেতে পারবেন।

৪। প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান-

এমন অনেক ছোটখাটো কোম্পানি আছে, যেখানে কোনো আইটি স্পেশালিস্ট নেই। প্রযুক্তিগত কোনরকম সমস্যা হলে তাদের বাইরে থেকে লোক নিয়ে যেতে হয়। তাই আপনার যদি প্রযুক্তি সম্পর্কিত জ্ঞান থেকে থাকে তাহলে আপনি অনলাইনে বসেই প্রযুক্তিগত পরামর্শ প্রদান করে ইনকাম করতে পারেন।

৫। হস্তশিল্প বিক্রেতা-

যদি আপনি হস্তশিল্প জেনে থাকেন তাহলে আপনি রোজগার করতে পারবেন সহজেই। আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে অনলাইনে আপনার জিনিসগুলি বিক্রি করতে থাকুন। এর ফলে গ্রাহকের কাছ থেকে ন্যূনতম সার্ভিস চার্জ নিয়ে কুরিয়ারের মাধ্যমে আপনার পণ্য পৌঁছে যাবে তাদের কাছে, আপনার পরিচিতি ও পারবে আবার রোজগার ও হবে।

৬। সোশ্যাল মিডিয়া পরিদর্শক-

বর্তমান যুগ হলো তথ্য প্রযুক্তির যুগ। তথ্যপ্রযুক্তি ছাড়া মানুষ এক মুহূর্ত চলতে পারে না। এই কারণে সোশ্যাল মিডিয়ার সাইটগুলি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে যেমন সাইটগুলি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তেমনি সোশ্যাল সাইট হ্যাক করার মত নানান রকম অপরাধমূলক মানসিকতার মানুষরাও বেড়ে চলেছে প্রতিনিয়ত। তাই আপনার যদি সোশ্যাল সাইটে বিভিন্ন ব্যবহারবিধি, নিরাপত্তাসহ ফ্রেন্ড, ফলোয়ার বৃদ্ধির নানান রকম ফান্ডা সম্পর্কে নলেজ থেকে থাকে তাহলে আপনি সহজেই সোশ্যাল মিডিয়া কনসালটেন্ট হয়ে উঠতে পারেন। এমন অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যেখানে সোশ্যাল মিডিয়া কনসালটেন্ট নিয়ে থাকে সেখানে আপনি কাজ করতে পারেন।

৭। প্রফেশনাল ফ্রিল্যান্সার-

ফ্রিল্যান্সিং কথাটি এলেই মানুষ ভাবে পার্টটাইম ঘরে বসে কাজ। কিন্তু এখন যে হারে চাকরির বাজার দর কমছে সেই হারে ফ্রিল্যান্সিংয়ের বাজারদর বাড়ছে। এখন প্রচুর মানুষ ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলোর সাথে যুক্ত হয় ঘরে বসেই রোজগার করছেন।

৮। কনটেন্ট ক্রিয়েটর-

এই ধারণার সঙ্গে কমবেশি সবাই পরিচিত। একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে আপনার নিত্য নতুন ধারণা গুলি সেই চ্যানেলে শেয়ার করতে থাকুন, আপনার জীবন যাপনের পদ্ধতি, ডায়েটিং প্ল্যান, আপনার লেখালেখি, কোনরকম গবেষণামূলক আলোচনা, নতুন কোন দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে লিখে নতুন কনটেন্ট তৈরি করে ইউটিউবে আপলোড করুন আর ব্যস ইউটিউবে ভিউয়ার, সাবস্ক্রাইবার বাড়লেই ঘরে বসে ইনকাম করতে পারবেন।

৯। এসইও কনসালটেন্ট-

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে যদি আপনার ধারনা থাকে তাহলে আপনাকে কাজের আশায় হা-পিত্যেশ করে বসে থাকতে হবে না। অনলাইনে আপনি এস ই ও সম্পর্কে পরামর্শ দিতে শুরু করুন, এরকম অনেক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা আপনার পরামর্শ নিতে চাইবে। বিভিন্ন ধরনের ফ্রিল্যান্স সাইটে কাজ করতে পারবেন আপনি আর সাইটগুলি যদি খুঁজে না পান তাহলে গুগল সার্চ করে নিন। যদি একজন সার্চ ইঞ্জিনের বিষয় বিশেষভাবে দক্ষ হন, তাহলে সহজেই এই কাজটি সে করতে পারেন।

১০। বিজনেস প্রশিক্ষণ-

এখন সব জায়গাতেই মানুষ পরামর্শদাতা খুঁজছেন। আপনার যদি ব্যবসা সম্পর্কে ভালো রকমের নলেজ থেকে থাকে কিন্তু পয়সার কারণে আপনি হয়তো ব্যবসা ঠিকমত করতে পারছেন না, তাহলে আপনি ব্যবসা সম্পর্কিত আর্টিকেল লিখে রোজগার করতে পারেন। এছাড়া ইউটিউবে বিজনেসের নানান রকম আইডিয়া দিয়ে আপনি রোজগার করতে পারেন। আপনি শুধুমাত্র পরামর্শ এবং আইডিয়া দিয়েই রোজগার করতে পারবেন কোনো ভালো কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করলে, এমন অনেক কোম্পানি আছে যারা পরামর্শদাতা রাখেন।

RELATED ARTICLES

Most Popular